আট খাবারে ঝরিয়ে ফেলুন পেটের বাড়তি চর্বি

0
211
views

বহু কষ্টে পেটের বাড়তি চর্বি ঝরিয়েছেন? আপনার এলোমেলো জীবনযাপনের কারণে আবারও তা ফিরে আসতে পারে। এর সঙ্গে ভুল খাদ্য তালিকার ব্যাপক প্রভাব তো রয়েছেই। এখানে কয়েকটি কার্যকর আয়ুর্বেদ উপাদানের কথা বলা হলো। এগুলো আপনার পেটের আকারকে নিয়ন্ত্রণে রাখবে।
১. লেবু পানি
দিনের শুরুতেই পেটে লেবুর রস চালান করে দিন। এটা পেটে চর্বি কমানোর সবচেয়ে কার্যকর উপায়। হালকা উষ্ণ এক গ্লাস পানিতে একটি লেবুর রস ও হালকা লবণ মিশিয়ে নিন। প্রতিদিন সকালে লবণযুক্ত এক গ্লাস লেবুর শরবত আপনার বিপাকক্রিয়াকে সুষ্ঠু করে দেবে।
২. বাদামি চাল
সাদা চাল এড়িয়ে যান। গমের যেকোনো পণ্য ঘরে এনে সাদা চালকে বিদায় জানান। বাদামি চাল, বাদামি রুটি, ওট বা এ-জাতীয় শস্যদানাকে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় নিয়ে আসুন।
৩. চিনিকে ‘না’
চিনির যেকোনো পণ্যকে দূরে রাখুন। মিষ্টি খাবার, পানীয় ইত্যাদি বাদ দিতে হবে। চিনিপূর্ণ খাবার দেহের চর্বির পরিমাণ বাড়িয়ে দেবে।
৪. পানি
প্রচুর পরিমাণে পানি খাবেন। পানি কিন্তু চর্বি ঝরানোর দারুণ এক মাধ্যম। পানি বিপাকক্রিয়ার ঝামেলা দূর করে। তা ছাড়া দেহের বিষাক্ত উপাদানও বের করে দেয়।
৫. রসুন
কাঁচা রসুন খাওয়ার অভ্যাস করুন। প্রতিদিন সকালে দুই-তিন কোয়া কাঁচা রসুন খেয়ে ফেলুন। এরপর লেবুপানি খেতে পারেন। এতে মেদ হারানোর প্রক্রিয়া দ্বিগুণ হারে ত্বরান্বিত হবে। এতে দেহে রক্ত চলাচল প্রক্রিয়া সুষ্ঠু হবে।
৬. ডাল শস্য
ডাল-শস্যের মতো উদ্ভিজ্জ আমিষ গ্রহণ করুন। প্রাণিজ আমিষ খুব বেশি খাবেন না। একে যতটা দূরে রাখা যায়।
৭. সবজি
টাটকা ফল ও সবজি খাওয়া শুরু করুন। এগুলো যতটা পারা যায় খেতে মানা নেই। সকাল-বিকেল এক বাটি সবজি খান। সুযোগ পেলেই ফল খেয়ে নিন। এগুলো দেহের বিষাক্ত উপাদান দূর করে এবং খনিজ ও ভিটামিনের জোগান দেয়।
৮. মসলা
খাবারে উপকারী মসলা ব্যবহার করুন। গরম মসলা, আদা, কালো মরিচ এবং এলাচ স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ উপকারী। দেহে ইনসুলিনের উৎপাদন নিয়মিত রাখে। রক্তে চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে এসব মসলা। সেই সঙ্গে পেটের চর্বি দূর করে দেবে।
–টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার