আমতলীতে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের শিশু খাদ্য

0
248
views

news_img (8)ভেজাল ও নিম্নমানের শিশু খাদ্যে সয়লাব হয়ে পড়েছে জেলা শহরের আমতলী হাট-বাজার। এসব খাদ্য খেয়ে নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা।

এ ব্যাপারে সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে একদিকে যেমন শিশু স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে, তেমনি এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা ফায়দা লুটছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এসব পণ্য জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকারি কিনে শহর ছাড়াও গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারে চলে যাচ্ছে। অল্প পুঁজিতে বেশি লাভের আশায় এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী এসব পণ্য শিশুদের হাতে তুলে দিচ্ছে। এসব পণ্যের অধিকাংশই প্যাকেটজাত হলেও এর গায়ে মেয়াদের তারিখ কিংবা বিএসটিআই এর কোনো সিল নেই। শুধু তাই নয়, বেশিরভাগ ঠিকানাও ভুয়া।

এ ব্যাপারে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্লিপ্ততার কারণে তা ক্রমেই ব্যাপক আকার ধারণ করছে। এ কারণে অভিভাবকরাও দুশ্চিন্তায় রয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আমতলী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ইসমত আরা কলি ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘বিভিন্ন ব্র্যান্ডের জুস, ড্রিংক নামে শিশুরা আসলে যা খাচ্ছে তা মোটেই স্বাস্থ্য সম্মত নয়। যে কারণে অল্প বয়সেই অনেকে মুটিয়ে যাচ্ছে, কারো শরীরে প্রয়োজনীয় শক্তি নেই। ফলে দেখা দিচ্ছে পুষ্টিহীনতাসহ নানা জটিল রোগ।’

মানবাধিকার কর্মী শাহাবুদ্দিন পান্না ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘আমাদের আইন আছে, কিন্তু যথাযথ প্রয়োগ না হওয়ায় অসাধু ব্যবসায়ী ভেজাল পণ্য উৎপাদন করেও পার পেয়ে যাচ্ছে। সরকার সম্প্রতি ভেজাল খাদ্য উৎপাদনকারী বেশ কয়েকটি কোম্পানির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আনলেও শিশুদের অপুষ্টিকর খাবার গ্রহণে কোনো বিধি-নিষেধ আরোপ করেনি। শিশু খাদ্যের মান নিশ্চিত করতে হলে অবশ্যই টাস্কফোর্স গঠন করতে হবে। পাশাপাশি সচেতনতা তৈরি করতে হবে।’