এডামস স্টোকস সিনড্রোম

0
141
views

আমাদের হার্ট বা হৃদপিন্ডে ৪টি চেম্বার বা প্রকোষ্ঠ থাকে। দুটি অলিন্দ এবং দুটি নিলয়। অলিন্দ দুটি উপরে থাকে আর নিলয় থাকে নিচে। হৃৎপিন্ডের ডান অ্যাট্রিয়াম প্রাচীরে উপর দিকে অবস্থিত বিশেষায়িত কার্ডিয়াক পেশিগুচ্ছে গঠিত ও স্বয়ংক্রিয় স্নায়ুতন্ত্রে নিয়ন্ত্রিত একটি ছোট অংশ যা বৈদ্যুতিক তরঙ্গ প্রবাহ ছড়িয়ে দিয়ে হৃদস্পন্দন সৃষ্টি করে এবং স্পন্দনের ছন্দময়তা বজায় রাখে তাকে পেসমেকার বলে। এই পেসমেকার থেকে ইলেকট্রিসিটি তৈরি হয় যেখান থেকে সারা হার্টে ইলেকটিসিটি ছড়িয়ে পড়ে। এর ফলে হার্টের সংকোচন হয় এবং সারা দেহে রক্ত ছড়িয়ে পড়ে।

যদি এই ইলেকট্রিসিটি চলার পথে প্রতিবন্ধকতা হয় তখন তাকে হার্ট ব্লক বলে। আরেক ধরনের ব্লক আছে। সে বিষয়ে অন্য প্রবন্ধে আলোচনা করা হবে। হার্ট ব্লক হলে হৃদপিন্ডের সংকোচন ক্ষমতা কমে যায় তখন রোগী অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

এডামস-স্টোকস সিনড্রোমে বিভিন্ন উপসর্গঃ

১. রোগী ১০ থেকে ৩০ সেকেন্ডের মত অজ্ঞান থাকে।

২. হঠাৎ ফ্যাকাশে হয়ে যায় রোগী তার পর যখন সুস্থ হয় তখন রক্তিম হয়ে উঠে মুখ।

৩. বেশীক্ষণ অজ্ঞান অবস্থায় থাকলে খিঁচুনি হয়।

৪. পালস পরীক্ষা করলে দেখা যায় ৪০ এর নিচে নেমে এসেছে।

৫. দিনের মধ্যে কয়েকবার এমন হতে পারে।

ভালভাবে ইতিহাস নিলেই এডামস-স্টোকস সিনড্রোম ডায়াগনসিস করা যায়। করলে হার্টব্লক বোঝা যায়। কেন এমন হচ্ছে তা জানার জন্য আরো কিছু পরীক্ষা লাগে। যেমন, করোনারি হার্ট-ডিজিস থাকলে এমন হয়। তখন এনজিওগ্রাম ও ইকোকার্ডিওগ্রাফি করা হয়। আবার জন্মগতভাবেও হার্টব্লক হয়।

অন্যান্য কিছু কারনের সাথেও এডামস-স্টোকস সিনড্রোমের মিল আছে। সেগুলো আছে কিনা তাও দেখে নেয়া উচিত।

এডামস-স্টোকস সিনড্রোমের চিকিৎসা নির্ভর করে যে কারনে এমন হচ্ছে কারণ দূর করা। কিছু ক্ষেত্রে পেসমেকার লাগে। তবে একজন কার্ডিওলজিস্টই ঠিক করবেন কার জন্য কোনটা লাগবে। এডামস-স্টোকস সিনড্রোমের রোগী পাওয়া যায়। তাই সবারই এ বিষয়ে জানা উচিত।