এন্টিবায়োটিক ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ায়

0
184
views

IO_Drugs_TylerHayward_Feb2নিয়মিত এন্টিবায়োটিক ওষুধ ব্যবহারের ফলে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি তৈরি হয় বলে সতর্ক করা হয়েছে নতুন একটি গবেষণায়।

ডেনমার্কের একদল গবেষক পরীক্ষা করে দেখেন, যেসব মানুষ টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত তারা দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন ধরনের এন্টিবায়োটিক ওষুধ গ্রহণ করেছেন।

গবেষকদের একজন ডেনমার্কের জেনটফটি হাসপাতালের ক্রিস্টিয়ান হালুন্ডবায়েক মিকেলসেন বলেন, আমাদের গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব রোগী টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত তারা ১৫ বছর ধরে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে এন্টিবায়োটিক গ্রহণ করেছেন।

তিনি উল্লেখ করেন, যদিও টাইপ-২ ডায়াবেটিসের জন্য এন্টিবায়োটিক সরাসরি দায়ী এটা বলার সময় এখনো আসেনি। তবে দীর্ঘদিন এন্টিবায়োটিক ব্যবহারের ফলে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

অন্য আরেকটি গবেষণায় দাবি করা হয়, এন্টিবায়োটিক গ্রহণের ফলে যারা ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে থাকেন তাদের মধ্যে ঐ সময়ে সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

টাইপ-২ ডায়াবেটিস ছিলো এরকম ১ লাখ ৭০ হাজার ৫০৪ জন রোগীর এন্টিবায়োটিক প্রেসক্রিপশন পরীক্ষা করে দেখেন গবেষকরা।

সাধারণত ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে উচ্চ মাত্রার চিনি বা শর্করা থাকে। এসব রোগী এই চিনি বিপাকে সহায়তাকারী ইনসুলিন নামক হরমোন পর্যাপ্ত পরিমাণে উৎপাদন করতে পারে না অথবা তাদের শরীরে যে ইনসুলিন রয়েছে তাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারে না।

অতীত গবেষণায় দেখা গেছে, এন্টিবায়োটিক অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া পরিবর্তন করে। অন্ত্রে উপস্থিত এসব ব্যাকটেরিয়া ডায়াবেটিস রোগীদের অতিরিক্ত চিনি বিপাকে সহায়তা করে।

এটাই উচ্চহারে এন্টিবায়োটিক গ্রহণ করার ফলে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা বেড়ে যাবার ব্যাখ্যা হতে পারে। তবে এ বিষয়ে আরো গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে বলে জানান মিকেলসেন।

নতুন এই গবেষণা প্রবন্ধটি ‘ক্লিনিকাল এন্ডোক্রাইনোলজি অ্যান্ড মেটাবলিজম’ জার্নালে প্রকাশিত হয়।সূত্র: এনডিটিভি