ক্যান্সার ঠেকাবে দুই ওষুধের মিশ্রণ

ডায়াবেটিসের ওষুধ মেটফরমিন এবং হাইপারটেনশনের ওষুধ সাইরোসিঙ্গোপিনের সংমিশ্রণ ক্যান্সার কোষের সঙ্গে লড়াই করে এটিকে মেরে ফেলতে পারে বলে নতুন এক গবেষণায় দাবি করা হয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের বাসেল ইউনিভার্সিটির একদল বিজ্ঞানীর গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

টাইপ টু ডায়াবেটিসের চিকিৎসায় ওষুধ হিসেবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই রোগীদের মেটফরমিন সেবনের পরামর্শ দেওয়া হয়। এ ওষুধ রক্তে সুগারের পরিমাণ কম রাখার পাশাপাশি ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও কাজ করে।

যদিও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাধারণত যে মাত্রায় মেটফরমিন সেবন করতে বল হয় সেটি ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কার্যকর লড়াইয়ে ক্ষেত্রে অনেক কম।

বাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মাইকেল হলের নেতৃত্বে পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ক্যান্সারের বিরুদ্ধে উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত ওষুধ সাইরোসিঙ্গোপিনের কার্যকারিতাও মেটফরমিনের মত।

গবেষকরা বলেন, যৌথভাবে এ দু’টি ওষুধের ব্যবহার ক্যান্সার কোষগুলোকে আপনা থেকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলতে চালকের ভূমিকা পালন করে।

তবে উচ্চমাত্রায় ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের ওষুধ ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিতে বাধা দিলেও এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে।

মেটফরমিনের ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি ঠেকানোর ক্ষমতা বাড়াতে গবেষকরা এক হাজারের বেশি ওষুধ নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। পরীক্ষার পর দেখা গেছে, মেটফরমিনের সঙ্গে যৌথভাবে সাইরোসিঙ্গোপিনের ব্যবহার ক্যান্সার কোষ ধ্বংসে বেশি কার্যকর।

বাসেল ইউনিভার্সিটির ডন বেঞ্জামিন বলেন, “উদাহরণ হিসেবে, আমরা লিউকোমিয়া আক্রান্ত রোগীদের শরীর থেকে নমূনা সংগ্রহ করেছিলাম। সেগুলোর উপর মেটফরমিন ও সাইরোসিঙ্গোপিনের ককটেল প্রয়োগ করে দেখেছি, প্রায় সব টিউমার কোষ ধ্বংস হয়ে গেছে এবং আমরা যে মাত্রায় ওষুধ দিয়েছি তা আসলে স্বাভাবিক কোষের জন্য বিষাক্ত ছিল না।”

“ওষুধগুলো একচেটিয়াভাবে শুধু ক্যান্সার কোষের ওপর প্রভাব বিস্তার করেছে। লিউকোমিয়ার চিকিৎসায় সুস্থ ব্যক্তির শরীর থেকে নেওয়া রক্তকোষে এটি কোনও প্রভাব ফেলে না।”

দ্য জার্নাল সায়েন্স অ্যাডভান্সে এ গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ পায়।