বিশ্ব ট্রমা দিবস

0
16
views

বিশ্ব ট্রমা দিবস। সড়কসহ বিভিন্ন দুর্ঘটনায় আহত মানুষের সুচিকিৎসার পাশাপাশি সচেতনতা সৃষ্টিতে প্রতিবছর আজকের এই দিনে দিবসটি পালন করা হয়।

ট্রমা বলতে বোঝায় শরীরে বা মনে সৃষ্ট কোন আঘাত। যেমন- পথ দুর্ঘটনা, আগুন লাগা, পুড়ে যাওয়া, হিংস্রতা, নারী, শিশু ও বয়ষ্কদের প্রতি শারীরিক বা মানসিক নির্যাতন। এরকম বিভিন্ন দুর্ঘটনায় আহত মানুষের চিকিৎসা ও সেবায় সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এই দিবসটি পালন করা হয়।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যানে জানা গেছে, প্রতি বছর বিশ্বে প্রায় ১২ লাখ মানুষ দুর্ঘটনায় নিহত হয়। আহত হয় পাঁচ কোটিরও বেশি মানুষ। উন্নয়নশীল দেশে ৫০ শতাংশ মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। আহত এসব মানুষের সেবা নিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বিশ্ব ট্রমা দিবস পালন করছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল কয়েকটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনেই সীমাবদ্ধ থাকে দিবসটি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নানা আয়োজনে দিবসটি পালন করা হলেও বাংলাদেশে সরকারি পর্যায়ে এ পর্যন্ত দিবসটি পালন করা হয়নি। চিকিৎসকদের কয়েকটি সংগঠন ও স্বেচ্চাসেবী-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনের মধ্যেই দিবসটি পালন সীমাবদ্ধ রয়েছে।

বাংলাদেশে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সড়ক দুর্ঘটনা এবং দুর্যোগের কারণে ট্রমার ঘটনা ঘটছে। এ থেকে প্রাণহানিও দিন দিন বাড়ছে। তাৎক্ষনিক চিকিৎসা না পাওয়ায় অনেককে পঙ্গুত্ব বরণ বা অঙ্গহানির ঘটনা ঘটছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। তারা সারাদেশে ট্রমা এবং ট্রমাজনিত কারণে প্রাণহানি প্রতিরোধে সরকার-বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে এগিয়ে এসে সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়ার আহবান জানান।

চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের নেতৃত্বে কাজ করা ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর তথ্যানুযায়ী, ২০১৭ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ৫ হাজার ৬৪৫ জনের। যা ২০১৬ সালের তুলনায় দেড় হাজার বেশি।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় হয় ৪ হাজার ৯৮৯টি। তাতে নিহতের সংখ্যা ৭ হাজার ৩৯৭ জন। এর আগের বছর দুর্ঘটনার সংখ্যা ৪ হাজার ৩১২টি। তাতে নিহত হয় ৬ হাজার ৫৫ জন। অর্থাৎ মাত্র এক বছরের ব্যবধানে সড়ক দুর্ঘটনার বৃদ্ধি পেয়েছে ১৫ দশমিক ০৫ শতাংশ। যাতে নিহতের সংখ্যা বেড়েছে ২২ দশমিক ০২ শতাংশ।

বাংলাদেশ আর্থোপেডিক সোসাইটির সভাপতি প্রফেসর ডা. আমজাদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সড়ক দুর্ঘটনা এবং দুযোর্গ-দুর্বিপাকের কারণে ট্রমা এবং এ থেকে প্রাণহানি ঘটে থাকে। এর প্রতিরোধে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।