পাবনার চাটমোহরে লিচু খেয়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম পাখি দাস (৪)। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন লিচুতে দেয়া কীটনাশকের বিষক্রিয়ায় তার মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে।

বুধবার সকালে পাবনা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পাখি পার্শবর্তী সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার খুকনী গ্রামের সাধন দাসের মেয়ে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পাখি তার মায়ের সঙ্গে পাবনার চাটমোহরের গুনাইগাছা গ্রামে নানা সমিরের বাড়িতে বেড়াতে আসে।

মঙ্গলবার দুপুরে পাখি বাড়ির পাশের লিচু বাগানে পড়ে থাকা কয়েকটি লিচু কুড়িয়ে খায়। এরপর বিকাল থেকেই সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এসময় পরিবারের লোকজন পাখিকে চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে বুধবার সকালে পাবনা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে সকাল ১০টার দিকে পাখিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

পাখির নানা বলেন, ডাক্তার বলেছেন বিষক্রিয়ায় পাখির মৃত্যু হয়েছে। আমরা ধারণা করছি লিচুতে দেয়া কীটনাশকের বিষক্রিয়ায় আমার নাতনির পাখি’র মৃত্যু হয়েছে।

গুনাইগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম পাখির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লিচুতে থাকে হাইপোগ্লাইসিন নামের এক ভয়ানক উপদান যা শিশুর শরীরে গ্লুকোজের মাত্রা মারাত্মকভাবে কমিয়ে দেয় । গবেষকরা নিশ্চিত করেছেন ভারতের মজাফফরপুরে লিচু খেয়ে গত প্রায় বিশ বছরে শত শত শিশুর মৃত্যু আসলে লিচুতে কীটনাশক ব্যবহার বা ভাইরাস সংক্রমণের জন্য হয়নি। হয়েছিলো হাইপোগ্লাইসিনের কারণে। খালি পেটে বেশী লিচু খাওয়া এবং রাতে খাবার না খেয়ে ঘুমিয়ে পড়া ছিল অন্যতম সহায়ক।