নীরব অন্ধত্বের প্রধান কারণ গ্লুকোমা — ভালো থাকুন

নীরব অন্ধত্বের প্রধান কারণ গ্লুকোমা

নীরব অন্ধত্বের প্রধান কারণ গ্লুকোমা। সাধারণ চোখের প্রেসার বেড়ে গিয়ে অফটিক নার্ভেও ক্ষতি হয় এবং দৃষ্টির পরিসীমা কমে যায়। এই রোগটির নাম হলো গ্লুকোমা।

বাংলাদেশে ৩৫ উর্ধো ব্যক্তিদের প্রায় শতকরা ৩ জনের গুøকোমা রয়েছে। বাংলাদেশ আইকেয়ার সোসাইটির একটি সমীক্ষা অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ লাখ মানুষ গ্লুকোমা রোগে ভুগছেন। এই গ্লুকোমা রোগটির বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কোন উপসর্গ থাকে না, যে কারণে গ্লুকোমা রোগীরা রোগের শেষ মুহূর্তে না আসা পর্যন্ত তারা বুঝতে পারেন না তাদের এই রকম ভয়ঙ্কর একটি রোগ রয়েছে।

গ্লুকোমা রোগ কেন হয়?

এই রোগের সুনির্দিষ্ট কোন কারণ খুঁজে পাওয়া না গেলেও অদ্যবদি চোখের উচ্চ চাপই এই রোগের প্রধান কারণ বলে ধরে নেয়া হয়। তবে স্বাভাবিক চাপেও এই রোগ হতে পারে।

সাধারণত চোখের উচ্চ চাপই ধীরে ধীরে চোখের ¯œায়ুকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং দৃষ্টিকে ব্যাহত করে। তবে কিছু কিছু রোগের সঙ্গে এই রোগের গভীর সম্পর্ক লক্ষ্য করা যায় এবং অন্যান্য কারণেও এই রোগ হতে পারে। যেমন-

  • পরিবারের অন্য কোন নিকট আত্মীয়ের (মা, বাবা, দাদা, দাদি, নানা, নানি, চাচা, মামা, খালা, ফুপু) এই রোগ থাকা।

  • উর্ধ বয়স (চল্লিশ বা তদোর্ধ)

  • ডায়বেটিস ও উচ্চ রক্ত চাপ।

  • মাইগ্রেন নামক মাথাব্যথা

  • রাত্রিকালীন উচ্চ রক্ত চাপের ওষুধ সেবন করা।

  • স্টেরোইড নামক ওষুধ দীর্ঘদিন সেবন করা।

  • চোখের ছানি অপারেশন না করলে বা দেরি করলে। সময় মতো চোখের ছানি অপারেশন না করা।

  • চোখের অন্যান্য রোগের কারণে।

  • জন্মগত ত্রুটি ইত্যাদি।

এগুলোর মধ্যে কেবলমাত্র চোখের উচ্চ চাপই ওষুধ দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব,যা গ্লুকোমা রোগের প্রধান কারণ।

গুøকোমা রোগের লক্ষণ কি?

অনেক ক্ষেত্রেই রোগী এই রোগের কোন লক্ষণ অনুধাবন করতে পারে না। চশমা পরিবর্তনের সময় কিংবা নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষার সময় হঠাৎ করেই চিকিৎসক এই রোগ নির্ণয় করে থাকেন। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে নি¤েœর লক্ষণগুলো দেখা দিতে পারে। যেমন-

১. ঘন ঘন চশমার গ্লাস পরির্বতন হওয়া।

২. চোখে ঝাপসা দেখা বা আলোর চারপাশে রংধনুর মতো দেখা।

৩. ঘন ঘন মাথা ব্যথা বা চোখে ব্যথা হওয়া।

৪. দৃষ্টিশক্তি ধীরে ধীরে কমে আসা বা দৃষ্টির পারিপার্শ্বিক ব্যপ্তি কমে আসা। অনেক সময় চলতে গিয়ে দরজার পাশে বা অন্য কোন পথচারীর গায়ে ধাক্কা লাগা।

৫. মৃদু আলোতে কাজ করলে চোখে ব্যথা অনুভূত হওয়া।

৬. ছোট ছোট বাচ্চাদের অথবা জন্মের পর চোখের কর্নিয়া ক্রমাগত বড় হয়ে যাওয়া বা চোখের কর্নিয়া সাদা হয়ে যাওয়া, চোখ লাল হওয়া, চোখ দিয়ে পানি পড়া ইত্যাদি।

গুøকোমা সম্পর্কে জানা জরুরী কেন?

  • আমাদের দেশে এবং পৃথিবীব্যাপী অন্ধত্বের দ্বিতীয় কারণ হলো চোখের গুøকোমা।

  • অনেক ক্ষেত্রে এই রোগের লক্ষণ রোগী বুঝতে পারার আগেই চোখের ¯œায়ু অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে।

  • এই রোগে দৃষ্টির পরিসীমা বা ব্যপ্তি ধীরে ধীরে সংকুচিত হয়ে আসে এবং কেন্দ্রীয় দৃষ্টিশক্তি অনেক দিন ঠিক থাকে বিধায়, রোগী চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে অনেক দেরি করে ফেলেন।

  • গ্লুকোমা চোখের অনিরাময় যোগ্য অন্ধত্ব তৈরি করে। তাই একবার দৃষ্টি যতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তা আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়।

  • চোখে গ্লুকোমা রোগ হলে রোগীকে সারা জীবন চিকিৎসকের সংস্পর্শে থাকেন না বা ঠিকমতো ওষুধ ব্যবহার করেন না। ফলে এই রোগ নীরবে ক্ষতি করে অন্ধত্বের দিকে নিয়ে যায়।

গুøকোমা রোগের চিকিৎসা কি?

গ্লুকোমা রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব কিন্তু নিরাময় সম্ভব নয়। ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্ত চাপের মতো এই রোগের চিকিৎসা সারাজীবন করে যেতে হবে। এই রোগে দৃষ্টি যতটুকু হ্রাস পেয়েছে তা আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। তবে দৃষ্টি যাতে আর কমে না যায় তার জন্য আমাদের চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে।

এ রোগের প্রচলিত তিন ধরনের চিকিৎসা রয়েছে-

ক) ওষুধের দ্বারা চিকিৎসা

খ) লেজার চিকিৎসা

গ) শৈল চিকিৎসা বা সার্জারি

যেহেতু চোখের উচ্চ চাপ এই রোগের প্রধান কারণ তাই ওষুধের দ্বারা চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা না গেলে একাধিক ওষুধ ব্যবহার করতে হবে। তদুপরি তিন মাস অন্তর-অন্তর চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে এ রোগের নিয়মিত কতগুলো পরীক্ষা করিয়ে দেখতে হবে এই রোগ নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা। যেমন-

  • দৃষ্টিশক্তি পরীক্ষা

  • চোখের চাপ পরীক্ষা

  • দৃষ্টির ব্যাপ্তি বা ভিজ্যুয়াল ফিল্ড পরীক্ষা

  • চোখের নার্ভ পরীক্ষা।

গ্লুকোমা রোগে রোগীর করণীয় কি?

  • চিকিৎসক রোগীর চক্ষু পরীক্ষা করে তার চোখের চাপের মাত্রা নির্ণয় করে তা নিয়ন্ত্রণের জন্য যে ওষুধের মাত্রা নির্ধারণ করে দেবেন তা নিয়মিত ব্যবহার করা।

  • দীর্ঘদিন একটি ওষুধ ব্যবহারের কার্যকারিতা কমে যেতে পারে বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে তাই নিয়মিত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া।

  • সময়মতো চোখের বিভিন্ন পরীক্ষা (যা পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে করিয়ে দেখা যে তার গ্লুকোমা নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা।

  • পরিবারের সবার চোখ পরীক্ষা করিয়ে গ্লুকোমা আছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া।

 

ROOT

করোনার ৩ নতুন উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ডায়রিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থা (সিডিসি) করোনাভা্রাসের নতুন তিনটি উপসর্গ চিহিৃত করেছে। নতুন ৩ উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ...
Read More

করোনায় শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামানের মৃত্যু

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মহাখালীর জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামান মারা গেছেন। ...
Read More

করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ফিরোজ আল-মামুন (৪০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ফিরোজ উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের মাওনা গ্রামের মৃত ...
Read More

অতিরিক্ত অর্থে মিলছে অক্সিজেন

রাজশাহীতে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। আর এর চাইতেও বেশি আছে করোনা উপসর্গ নিয়ে নতুন রোগীর সংখ্যা। এ ধরনের ...
Read More

উপসর্গে ওসমানী মেডিকেলের অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকরের মৃত্যু

সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকর দে করোনাভাইরাসের ...
Read More

চীনের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হতে পারে বাংলাদেশে

করোনাভাইরাস নির্মূলে চীন আবিষ্কৃত সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বাংলাদেশে হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। ...
Read More

ক‌রোনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টার মৃত্যু

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমী মারা গেছেন। শুক্রবার (২৬ জুন) বিকেলে এভার কেয়ার ...
Read More

রাজশাহীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে দু’জনের মৃত্যু,

প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে মারা গেছেন একজন। আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে করোনার উপসর্গ নিয়ে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল ...
Read More

করোনায় মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যানের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বেসরকারি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি ...
Read More
%d bloggers like this: