অন্যের জমিতে ঔষধি গাছের বাগান করে সাফল্যের নজির গড়েছেন নেত্রকোণার এক চাষি। পরীক্ষামূলক চাষ করলেও প্রথম বছরই তিনি সাফল্যের মুখ দেখেন।

নেত্রকোণা সদর উপজেলার জয়নগর এলাকার বাসিন্দা আবদুল হামিদ ২০০৬ সালে মাত্র এক হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে সরকারি পশু হাসপাতালের সামনে পরীক্ষামূলকভাবে ঔষধি গাছের চারা লাগান। প্রথম বছরই তার আয় হয় ২০ হাজার টাকা। পরে জেলা শহরের বিভিন্ন সরকারি অফিসের আঙ্গিনা, বাসা-বাড়ির ছাদ, বারান্দাসহ বিভিন্ন পরিত্যাক্ত স্থানে ঘৃতকুমারি, অ্যালোভেরা, আমলকি, বহেরাসহ একশ’ ২০ প্রজাতির ঔষধি গাছের বাগান গড়ে তোলেন তিনি।

আবদুল হামিদের সাফল্যে উৎসাহি হয়েছেন এলাকার অনেক চাষি। সদর উপজেলার সনুরা, দরিজাগি, বর্শিকুড়া, কানসাসহ আরও পাঁচ গ্রামে এখন বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে ঔষধি গাছ।

জেলায় ঔষধি বাগান সম্প্রসারণে কাজ করছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ।

জেলা সদরের হাসপাতাল রোডে আবদুল হামিদ প্রতিষ্ঠা করেছেন নিজ বাগানে উৎপাদিত ঔষধি গাছ থেকে তৈরি ঔষধের দোকান। দোকান থেকে প্রতি মাসে তার আয় ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা।