বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া এক বাংলাদেশি চিকিৎসক — ভালো থাকুন

বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া এক বাংলাদেশি চিকিৎসক

বিশ্ব ফুটবল সংস্থা ফিফার বিশ্বকাপ ডোপিং নিয়ন্ত্রক দলের সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন বাংলাদেশের চিকিৎসক আবদুল মতিন।

ডোপিং পরীক্ষা মানে কোনো খেলোয়াড় নিষিদ্ধ শক্তিবর্ধক ওষুধ, পানীয়, খাবার বা কোনো মাদকদ্রব্য গ্রহণ করেছে কি না, খেলোয়াড়দের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে তা-ই পরীক্ষা করে দেখা। ডোপিং নিয়ন্ত্রক বিভাগের সদস্যের মধ্যে অন্যতম ডা. আবদুল মতিনের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সুলতানপুরে।

রাশিয়ায় চিকিৎসাবিজ্ঞানে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারী আবদুল মতিনসহ ডোপ নিয়ন্ত্রক বিভাগের চিকিৎসকদের কাজ হলো, খেলোয়াড়দের দিকে কড়া নজর রাখা। সন্দেহ হলে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা। মতিনদের এ দায়িত্বের আনুষ্ঠানিক নাম ‘ডোপিং কন্ট্রোল শ্যাপেরন’—সংক্ষেপে ডিসিসি।

এবারের বিশ্বকাপে যে ১১টি স্টেডিয়ামে খেলা হচ্ছে, সেগুলোতে চারজন করে ৪৪ জন এ কাজ করছেন। মতিন আছেন সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে। এখানে তাঁর সঙ্গী ইতালি, নাইজেরিয়া ও তিউনিসিয়ার তিনজন চিকিৎসক। এ চারজনের নেতৃত্বে আছেন জার্মান ডোপিং কন্ট্রোল অফিসার (ডিসিও) অধ্যাপক ক্লিনফিল্ড জেন্স।

ফিফার ডোপিং কন্ট্রোল বিভাগের সহকারী হিসেবে তাঁদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। এ দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মতিন দেখা পেয়েছেন বিশ্বের সেরা সব খেলোয়াড়ের। নানা কথাও হয়েছে তাদের।

এ প্রসঙ্গে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে বাংলাদেশের একটি সংবাদ মাধ্যমকে ডা. আবদুল মতিন বলেন, ‘দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অনেকের সঙ্গে পরিচিত হতে পেরেছি। ব্রাজিলের তারকা ফুটবলার নেইমার, মিসরের মোহাম্মদ সালাহ, রাশিয়ার ডেনিস চেরিসভ, আর্জেন্টিনার ওতামেন্দি, নাইজেরিয়ার অবিমিকেলের মতো খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলতে পেরেছি।’

যেভাবে ডোপ টেস্ট করা হয়

এ প্রসঙ্গে ডা. আবদুল মতিন বলেন, ‘খেলোয়াড় নির্বাচন হয়ে থাকে দুভাবে—সন্দেহজনক মনে হলে কিংবা লটারির মাধ্যমে। আমরা চারজন একজন করে খেলোয়াড়ের জন্য সাইড লাইনে অপেক্ষা করতে থাকি। খেলার শেষ বাঁশি বাজার সঙ্গে সঙ্গেই খেলোয়াড়দের ডোপ টেস্ট সম্পর্কে বলি। ডোপ টেস্টের জন্য নির্বাচিত খেলোয়াড় কোনোভাবেই নিজেদের ড্রেসিং রুমে যেতে পারেন না। সংবাদ সম্মেলন থাকলেও আমরা সার্বক্ষণিক খেলোয়াড়কে পর্যবেক্ষণে রাখি। তাঁদের রক্ত ও প্রস্রাব সংগ্রহ করে পরীক্ষা করি।’

ডোপিং কন্ট্রোল দলের সদস্য হওয়ার গল্প

২০১৬ সাল। আবদুল মতিন তখনো সেন্ট পিটার্সবার্গের নর্থ-ওয়েস্টার্ন স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটির পিএইচডি শিক্ষার্থী। রাশিয়ায় বিশ্বকাপ উপলক্ষে ডোপিং নিয়ন্ত্রক বিভাগে লোক নেওয়ার বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের মাধ্যমেই জানেন তিনি। সংশয় নিয়ে আবেদন করেন। ফিফার কাছে জমা পড়ল মতিনের মতো বিশ্বের সাড়ে ২৭ হাজার আবেদনকারীর আবেদন। তার মধ্য থেকে মাত্র ৪৪ জনকে নির্বাচিত করে ফিফা।মতিন তাঁদেরই একজন।

এ প্রসঙ্গে ডা. আবদুল মতিন বলছিলেন, ‘আমাকে বিভিন্ন ধাপে প্রায় ১০বার পরীক্ষায় বসতে হয়েছে। তবে এসব পরীক্ষার বাইরেও বাড়তি যোগ্যতা হিসেবে স্পোর্টস মেডিসিনের ওপর ডিপ্লোমা কোর্স আমাকে সহায়তা করেছে। যেমন সহায়তা করেছে ২০১৭ সালের সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্ঠিত ফিফা ভ্যালেন্টিন গ্রানাটকিন অনূর্ধ্ব-১৮ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট এবং একই বছর কনফেডারেশন কাপে মেডিকেল অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসেবে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা।’

ফুটবল খেলতেন মতিন

কৈশোরে স্কুলের ফুটবল দল ছাপিয়ে জেলা পর্যায়েও খেলেছেন আবদুল মতিন। তিনি খেলেছেন বিমান অনূর্ধ্ব-১৪ দলের হয়ে। কিন্তু পড়ালেখা আর পারিবারিক চাপে খুব তাড়াতাড়ি খেলাকে বিদায় জানাতে হবে, ভাবেননি মতিন।

মেডিকেল লাইফের গল্প

রাশিয়ায় উচ্চশিক্ষার জন্য আবদুল মতিন আবেদন করেন বৃত্তির। ২০০৫ সালে সুযোগ মেলে। উড়াল দেন বরফের দেশে।

২০১২ সালে রাশিয়ার রোস্তভ স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটি থেকে এমবিবিএস ও এমডি ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০১৪ সালে সেন্ট পিটার্সবার্গের নর্থ-ওয়েস্টার্ন স্টেট মেডিকেল ইউনিভার্সিটি থেকে ক্লিনিক্যাল অর্ডিনাটুরা ইন কার্ডিওলজি বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেন। বর্তমানে একই ইউনিভার্সিটিতেই কার্ডিওলজি বিষয়ে করছেন পিএইচডি।

আবদুল মতিনের পারিবারিক জীবন

আবদুল মতিনকে এলাকার মানুষ সেলিম নামে চেনে। বাবা হাফেজ আবদুর রহিম ও মা জোহরা বেগমের পাঁচ সন্তানের মধ্যে সবার ছোট মতিন। ২০১৫ সালে বিয়ে করেছেন। স্ত্রী জান্নাতুল মাওয়া পড়ছেন ঢাকার শমরিতা মেডিকেল কলেজে। তাঁদের পাঁচ মাসের ছেলের নাম আহনাফ সাফওয়ান।

কাতার বিশ্বকাপেও ডা. আবদুল মতিন!

ডা. আবদুল মতিন জানান, কাতারে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের চিকিৎসা দলের সঙ্গেও কথা হয়েছে তাঁর। সেখানেও তার দায়িত্বপালনের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

ROOT

করোনার ৩ নতুন উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ডায়রিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থা (সিডিসি) করোনাভা্রাসের নতুন তিনটি উপসর্গ চিহিৃত করেছে। নতুন ৩ উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ...
Read More

করোনায় শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামানের মৃত্যু

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মহাখালীর জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামান মারা গেছেন। ...
Read More

করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ফিরোজ আল-মামুন (৪০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ফিরোজ উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের মাওনা গ্রামের মৃত ...
Read More

অতিরিক্ত অর্থে মিলছে অক্সিজেন

রাজশাহীতে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। আর এর চাইতেও বেশি আছে করোনা উপসর্গ নিয়ে নতুন রোগীর সংখ্যা। এ ধরনের ...
Read More

উপসর্গে ওসমানী মেডিকেলের অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকরের মৃত্যু

সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকর দে করোনাভাইরাসের ...
Read More

চীনের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হতে পারে বাংলাদেশে

করোনাভাইরাস নির্মূলে চীন আবিষ্কৃত সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বাংলাদেশে হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। ...
Read More

ক‌রোনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টার মৃত্যু

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমী মারা গেছেন। শুক্রবার (২৬ জুন) বিকেলে এভার কেয়ার ...
Read More

রাজশাহীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে দু’জনের মৃত্যু,

প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে মারা গেছেন একজন। আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে করোনার উপসর্গ নিয়ে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল ...
Read More

করোনায় মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যানের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বেসরকারি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি ...
Read More
%d bloggers like this: