ভারতে করোনাভাইরাস রোগে আক্রান্ত রোগীর ৫২৫ জন

ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে ৫২৫ জন আক্রান্ত হয়েছে, আর এতে মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বর্তমানে দেশটিতে সবমিলিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৭২ জন। এর মধ্যে মোট ৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সরকারি কর্মকর্তাদের মতে, গেল মাসে দিল্লিতে তাবলিগ-ই-জামাতের সমাবেশে উপস্থিত কিছু মানুষের মাধ্যমেই দেশজুড়ে এই সংক্রমণ আরও দ্রুত হারে ছড়াচ্ছে। এখন পর্যন্ত ওই জমায়েতে যারা হাজির হয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ৩৬০ জনেরও বেশি মানুষের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ভারতজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন চলছে। আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এই অবস্থা। কিন্তু এর মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে।

দেশটির রাজ্যগুলোর মধ্যে করোনাভাইরাস সবচেয়ে বেশি কাবু করতে পেরেছে মহারাষ্ট্রকে। তারপরেই রয়েছে তামিলনাড়ু।

এদিকে দিল্লিতে তাবলিগ-ই-জামাতের সমাবেশে যোগদানকারী আরও ১৫ জনকে বারানসিতে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের শরীর থেকে নমুনা নেয়ার পর দেখা গেছে, দুজনের শরীরে ইতোমধ্যে করোনাভাইরাস বাসা বেধেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটিতে আটকা পড়া ফ্রান্সের ১১২ নাগরিককে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বিশেষ বিমানে শনিবারই (৪ এপ্রিল) প্যারিসে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তারা বেড়াতে এসে কোচি, বেঙ্গালুরু এবং মুম্বাইয়ের বিভিন্ন জায়গায় আটকা পড়েছিলেন।

এদিকে ভারতের মুম্বাইয়ে এশিয়ার বৃহত্তম বস্তিতে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজন মারা যাওয়ার পর দেশটির শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসকরা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ব্যাপক সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য ভারতকে অবশ্যই প্রস্তুতি নিতে হবে। যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়া হলে দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার পাশাপাশি করোনায় মৃত্যুপরী ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যেতে পারে ভারত।

ROOT

%d bloggers like this: