স্বাস্থ্যসম্মত কি খাবার খাবেন এই ঈদে — ভালো থাকুন

স্বাস্থ্যসম্মত কি খাবার খাবেন এই ঈদে

রোজার সময় মানুষের খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাপন প্রণালীতে কিছু পরিবর্তন আসে। এই পরিবর্তনের ব্যাপারটি শেষ হয় ঈদের দিনে। এ দিন সতর্কতার সঙ্গে খাবার খেলে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা থাকে না।ঈদের দিন সতর্কতার সঙ্গে যদি খাবার খাওয়া হয়, তাহলে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা থাকে না। কারণ ৩০ দিন উপবাস থাকার ফলে (বিশেষ করে দিনের বেলায়) পাকস্থলী সেটাতেই অভ্যস্ত হয়ে যায়।

এ কারণে হঠাৎ করে ঈদের সকাল থেকে রাত পর্যন্ত গুরুপাক খাবার খেতে থাকলে পেটে প্রচণ্ড ব্যথা, পেট খারাপ, বমি, পেটে গ্যাস ইত্যাদি হতে দেখা যায়। এর কারণ এ সময় পরিপাকের এনজাইমগুলো ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। এ ছাড়া দীর্ঘস্থায়ীভাবে জন্ম নেওয়া আইবিএস বা ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম, গ্যাসট্রাইটিস ইত্যাদি সমস্যা বাড়ে।

ঈদের দিন প্রায় প্রতি বাড়িতেই মিষ্টি ও মিষ্টান্নের ব্যবস্থা করা হয়। যেমন—সেমাই, পুডিং, হালুয়া, জর্দা, পায়েস, কাস্টার্ড ইত্যাদি। এর পাশাপাশি ঝালযুক্ত খাবারও থাকে, যেমন—চটপটি, ফুসকা, পাস্তা, নুডলস, পোলাও, বিরিয়ানি, তেহারি, কাবাব, কালিয়া, কোরমা ইত্যাদি।

ঈদের দিন নারিকেলের ব্যবহার শহরের চেয়ে গ্রামেই বেশি। সেমাই বা গুড়ের পায়েসের সঙ্গে নারিকেলের ব্যবহার দেখা যায়। এ ছাড়া মুরগি, খাসির মাংস ও পোলাও রান্নার ক্ষেত্রে নারিকেলের দুধ ব্যবহার করা হয়। নারিকেল সহজপাচ্য, ক্যালরি ও চর্বিসমৃদ্ধ। সুস্বাদু তো বটেই। তবে যাদের রক্তে কোলেস্টেরল ও ট্রাই গ্লিসারাইডের পরিমাণ বেশি এবং যারা হৃদরোগে আক্রান্ত, তাদের নারিকেল না খাওয়াই ভালো।

মিষ্টি খাবার তৈরিতে অথবা পোলাও-বিরিয়ানির ক্ষেত্রেও পেস্তা বাদাম, কিশমিশের ব্যবহার হয়। এগুলো যেমন পুষ্টিকর, তেমনি খাবারের স্বাদ ও শোভা বাড়ায়। ঈদের রান্নায় দুধ ও দইয়ের ব্যবহারও হয়ে থাকে। দুধের প্রোটিন উত্কৃষ্ট মানের। মানুষের অন্ত্রে অনেক সময় জীবাণু সংক্রমণের ফলে উদ্বায়ু, কোষ্ঠকাঠিন্য, গজানো, পচন ইত্যাদির সমস্যা দেখা যায়। দইয়ের ভেতর ল্যাক্টোবেসিলি বুলগেরিকাস নামের ব্যাকটেরিয়া এই অসুবিধাগুলো দূর করতে সহায্য করে।

রান্নার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখা উচিত, খাদ্যের পুষ্টিমান যেন বজায় থাকে। যেহেতু ঈদে মাংস রান্নাও বেশি হয়, তাই খেয়াল রাখতে হবে মাংস যেন ভালো করে সিদ্ধ হয়, না হলে হজমের সমস্যা হবে।

 

যা খাবেন

এবার ঈদুল ফিতর পালিত হচ্ছে বর্ষাকালে। তবুও আবহাওয়া বেশ গরম। তাই এই গরমের সময়টা মাথায় রেখেই খাবারের মেন্যু নির্বাচন করা উচিত।

ঈদের খাবারের আয়োজনে ফালুদা, লাচ্ছি, ফলের সালাদ, ফলের জুস ইত্যাদি দেওয়া যেতে পারে। এতে দেহের প্রশান্তির পাশাপাশি পেটের আরাম হবে। এ ছাড়া বিভিন্ন ফল দিয়ে কাস্টার্ড অথবা আস্ত ফল অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে। এতে খনিজ লবণ ও ভিটামিনের অভাব পূরণ হয়।

ঈদের ঝাল ও মসলাযুক্ত খাবারগুলো বেশ গুরুপাক। এ জন্য এসব খাবার তৈরি করার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে বেশি ঝাল-মসলা ও ঘি-ডালডার ব্যবহার না হয়। এ ছাড়া যাদের পেটের সমস্যা আছে, তাদের রোস্ট বা রেজালার পরিবর্তে কোরমা খাওয়া যেতে পারে। পোলাও, বিরিয়ানি খেতে অসুবিধা থাকলে পোলাওর চালের ভাত বা ফ্রায়েড রাইস করেও খাওয়া যেতে পারে। ডায়াবেটিসের জন্য যাঁদের চিনি, গুড় খাওয়া নিষেধ, তাঁরা বিকল্প চিনি দিয়ে মিষ্টান্ন তৈরি করে খেতে পারেন।

 

খাবারের মেন্যুতে পানীয় রাখুন

এই ঈদে মোটামুটি ভালোই গরম থাকছে বলে গরমে হজমে সমস্যা হওয়ার প্রবণতাও বেশি থাকতে পারে। এ জন্য অবশ্যই খাবারের মেন্যুতে পর্যাপ্ত পানীয় রাখুন। খাওয়ার পর অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। পানীয়ের মেন্যুতে রাখতে পারেন মাল্টা, আনারস কিংবা তেঁতুলের টকমিষ্টি শরবত, মাঠা ও দইয়ের লাবাং, লাচ্ছি ইত্যাদি। এসব খাবার খেতেও সুস্বাদু আর পুষ্টিকর। খাওয়ার আধা ঘণ্টা পর টক দইয়ের সঙ্গে সামান্য চিনি ও লবণ দিয়ে ব্লেন্ডারে মাঠা তৈরি করে নিতে পারেন। এতে গ্যাসের সমস্যা থেকে রেহাই পাবেন। চাইলে ঠাণ্ডা পানিতে লেবুর রস, চিনি ও লবণ দিয়ে শরবত বানাতে পারেন। লেবুর শরবত গরমে প্রশান্তি দেবে, হজমেও সহায়তা করবে।

 

খাবার গ্রহণে সতর্কতা

ঈদের দিন যত ভালো ও সুস্বাদু খাবারের আয়োজন থাকুক না কেন, মাত্রাজ্ঞান রেখে কিছুটা বিরতি দিয়ে, নিজ নিজ স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে খাবার গ্রহণ করা উচিত। যেমন—যাঁদের হৃদরোগ আছে, তাঁদের চর্বি ও ঘি পরিহার করতে হবে। যাঁদের কিডনির সমস্যা রয়েছে, তাঁদের মাছ-মাংস কম খেতে হবে। যাঁদের ডায়াবেটিস আছে তাঁরা চিনি দিয়ে রান্না করা খাবার থেকে বিরত থাকুন। যাঁদের গ্যাসের সমস্যা আছে তাঁরা নারিকেল দিয়ে তৈরি খাবার খালি পেটে খাবেন না। এ ছাড়া দুধ ও দুগ্ধজাতীয় খাবার ও অতি ঝাল ও মসলাযুক্ত খাবার থেকে বিরত থাকুন।

এক মাসের অনভ্যস্ত পাকস্থলী হঠাৎ করে অনেক খাবারের চাপ সহ্য করতে পারে না বলে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। অনেক সময় হাসপাতালে ভর্তি হতেও দেখা যায়। এ জন্য খাবার হবে পরিমিত, স্বাস্থ্যসম্মত ও সহজপাচ্য। তবেই ঈদের আনন্দটুকু উপভোগ করা যাবে।

ROOT

করোনার ৩ নতুন উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ডায়রিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থা (সিডিসি) করোনাভা্রাসের নতুন তিনটি উপসর্গ চিহিৃত করেছে। নতুন ৩ উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ...
Read More

করোনায় শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামানের মৃত্যু

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মহাখালীর জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামান মারা গেছেন। ...
Read More

করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ফিরোজ আল-মামুন (৪০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ফিরোজ উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের মাওনা গ্রামের মৃত ...
Read More

অতিরিক্ত অর্থে মিলছে অক্সিজেন

রাজশাহীতে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। আর এর চাইতেও বেশি আছে করোনা উপসর্গ নিয়ে নতুন রোগীর সংখ্যা। এ ধরনের ...
Read More

উপসর্গে ওসমানী মেডিকেলের অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকরের মৃত্যু

সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকর দে করোনাভাইরাসের ...
Read More

চীনের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হতে পারে বাংলাদেশে

করোনাভাইরাস নির্মূলে চীন আবিষ্কৃত সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বাংলাদেশে হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। ...
Read More

ক‌রোনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টার মৃত্যু

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমী মারা গেছেন। শুক্রবার (২৬ জুন) বিকেলে এভার কেয়ার ...
Read More

রাজশাহীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে দু’জনের মৃত্যু,

প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে মারা গেছেন একজন। আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে করোনার উপসর্গ নিয়ে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল ...
Read More

করোনায় মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যানের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বেসরকারি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি ...
Read More
%d bloggers like this: