স্লিপ ডিস্কে ভুগছেন আনুশকা শর্মা — ভালো থাকুন

স্লিপ ডিস্কে ভুগছেন আনুশকা শর্মা

অদ্ভুত রোগে ভুগছেন বলিউড নায়িকা আনুশকা শর্মা। এমনটি জানিয়েছে বলিউডের একটি সূত্র।
ওই সূত্র জানায়, ‘বালগিং ডিস্কে’ ভুগছেন আনুশকা শর্মা। সাধারণ ভাবে একে স্লিপ ডিস্ক বলা হয়। চিকিৎসকদের মতে, এই রোগে মূলত স্নায়ুর সমস্যা হয়।

পিঠের নিচে যন্ত্রণা প্রবল হয়ে ওঠে। শরীর ক্রমশ দুর্বল হয়ে যায়। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে নিয়মিত ওষুধ,  ব্যায়াম, মেডিটেশনের ফলে এই রোগ থেকে মুক্তি সম্ভব।
এ রোগ থেকে মুক্তি পেতে আনুশকাকে সম্পূর্ণ বিশ্রামের পরামর্শ দিয়েছেন তার চিকিৎসক। কিন্তু সামনে মুক্তি পেতে চলেছে আনুশকার নতুন ছবি ‘সুই ধাগা’। নতুন এ ছবির প্রচারে এই মুহূর্তে প্রবল ব্যস্ত তিনি। ফলে কোন ধরনের বিশ্রাম নিতে পারছেন না জনপ্রিয় এ অভিনেত্রী।
তবে বিরাট কিংবা আনুশকার পক্ষ থেকে এ রোগের ব্যাপারে কেউ কিছু জানান নি।

আসুন জেনে নেই স্লিপ ডিস্কে কি ?

স্লিপড ডিস্ক

মেরুদণ্ডের গঠন:

স্লিপড ডিস্ক-এর সমস্যা বুঝতে গেলে আমাদের মেরুদণ্ডের গঠনটা একটু বুঝতে হবে। আমাদের মেরুদণ্ড কতকগুলি ছোট ছোট হাড় দিয়ে তৈরি। এই হাড় গুলির মধ্যে থাকে একটি করে ডিস্ক যা কুশনের মত কাজ করে। ডিস্কটি হল জেলি ভর্তি চ্যাপটা বেলুনের মত। আমাদের সুষুম্নাকাণ্ড মেরুদণ্ডের যে নালী দিয়ে মস্তিষ্ক থেকে শিরদাঁড়ার শেষ পর্যন্ত বয়ে চলেছে তা থাকে এই ডিস্কগুলির ঠিক পিছনে। এই সুষুম্নাকাণ্ড থেকেই আমাদের শরীরের প্রবাহিত সমস্ত নার্ভগুলি বের হচ্ছে ডিস্কগুলিরই দুই পাশের দুই নালী দিয়ে। অর্থাৎ ডিস্কের ঠিক পিছনে থাকে সুষুম্নাকাণ্ড এবং পিছন ভাগের দু’পাশে থাকে দু’দিকের নার্ভ রুট।

স্লিপড ডিস্ক কি ? কেমন তার লক্ষণ ?

যে কোনও কারণে ডিস্কের মধ্যের জেলি পদার্থটি যদি বেরিয়ে আসে তাকে বলা হয় স্লিপড ডিস্ক। এই জেলি সাধারনত দু’দিকের কোনও একটি বা দু’দিকেই নার্ভ রুটকে চাপ দিতে পারে অথবা ঠিক পিছনে সুষুম্নাকাণ্ডে ছাপ দিতে পারে। এর ফলে ওই নির্দিষ্ট নার্ভটি শরীরের যে অংশে প্রবাহিত হচ্ছে, সেই অংশেও ব্যথা সঞ্চারিত হবে। আমাদের মেরুদণ্ডের ঘাড় এবং কোমরই সবচেয়ে বেশি নড়াচড়া করে আর তাই স্লিপড ডিস্কও এই দুটি অংশে বেশি হয়। ঘাড়ের স্লিপড ডিস্কের জন্য ঘাড়ের ব্যথা কাঁধ ও হাতের দিকে প্রবাহিত হয় আবার কোমরের স্লিপড ডিস্কের জন্য কোমরের ব্যথা উরু ও পায়ের দিকে প্রবাহিত হয়। প্রথমদিকে স্লিপড ডিস্কের জন্য শুধুমাত্র ব্যথা থাকলেও পরবর্তীকালে ঝিন ঝিন করা, অবশ হয়ে যাওয়া, মাংসপেশীর দুর্বলতা প্রকাশ পাওয়া ইত্যাদি লক্ষণগুলি দেখতে পাওয়া যায়। এই অবস্থা যদি দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকে তাহলে নার্ভগুলি নিজেরাই রোগগ্রস্ত হয়ে পড়ে যাকে বলা হয় নিউরোপ্যাথিক পেন। নিউরোপ্যাথি তৈরি হয়ে গেলে যে কোনও চিকিৎসাতেই সমস্যা সারানো বেশ কঠিন কাজ হয়ে দাঁড়ায়।

সমাধান:

সমস্যা তো মোটামুটি বোঝা গেল, সমাধান কি? যে কোনও চিকিৎসাতেই নার্ভের ওপর চাপ পড়া বন্ধ করাই হল সমাধানের উপায়। সেই সঙ্গে আবার যাতে জেলি পদার্থ (নিউক্লিয়াস পাল্পোসাস)  না এসে পড়ে, সেটাও নিশ্চিত করা দরকার। এর জন্য ডিস্কটিকে ছোট করে দেওয়া এবং যে নালী দিয়ে নার্ভ রুট বের হচ্ছে সেই নালীটিকে বড় করে দেওয়া বা পরিষ্কার করে দেওয়াই হল যে কোনও চিকিৎসারই প্রাথমিক লক্ষ্য।

এই লক্ষ্যপূরণ হতে পারে বিভিন্ন ধরনের অপারেশনের দ্বারা অথবা অপারেশন ছাড়া আধুনিক কিছু ইন্টারভেনশনাল পেন ম্যানেজমেন্ট দ্বারা।

অপারেশনের ভাল-মন্দ:

বিভিন্ন ধরনের অপারেশান এই সমস্যার সমাধানের জন্য করা হয়। সব ধরনের অপারেশনেই ভাল-মন্দ দুইই আছে। তবে সব অপারেশনেই ডিস্কটিকে কেটে ছোট করে দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে নার্ভ রুটের নালীটিকে বড় করে দেওয়া হয়। আধুনিক কিছু অপারেশনে ডিস্কটিকে পরিবর্তন করে দেওয়া হয় অথবা খুব ছোট ফুটো করে এই অপারেশন করা হয়। বিভিন্ন ধরনের অপারেশনে সাফল্যের হার ৫০ শতাংশ থেকে ৯৫ % পর্যন্ত।

কিন্ত্ত যে কোনও বড় অপারেশনে অ্যানাসস্থেশিয়া ও তার আনুষঙ্গিক ঝুঁকি তো রয়েছেই, সঙ্গে রয়েছে পার্শ্ববর্তী নার্ভ বা স্পাইনাল কর্ড-এ চোট লাগা এবং তার জন্য ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা। কিন্ত্ত যে সমস্যা ডাক্তারবাবুদের কপালের ভাঁজ আরও বাড়িয়ে দেয় তা হল অপারেশনে ব্যর্থ হওয়া ৫ থেকে ৫০ শতাংশ রোগীর পরবর্তী চিকিৎসা। দ্বিতীয় বা তৃতীয়বার অপারেশন ব্যর্থ হলে সমস্যা আরও বেশি হয় এবং এই ধরনের রোগীদের পরবর্তী জীবন নিজের এবং পরিবারের কাছে বিভীষিকাময় হয়ে ওঠে।

অপারেশন এড়ানোর উপায়ঃ 

অপারেশন এড়ানোর সবচেয়ে ভাল উপায় হল ওজোন থেরাপি বা পারকিউটেনিয়াস ডিস্ক ডিকম্প্রেসন অথবা এন্ডস্কপিক ডিস্ক অপারেশন যাতে ঝুঁকি প্রচলিত অপারেশনের তুলনায় অনেক কম।

অপারেশন ব্যর্থ হওয়ার বিভিন্ন কারণের মধ্যে প্রধান কারণগুলি হল –

  • নার্ভ রুটের নালীটিকে বড়  করতে গিয়ে শিরদাঁড়ার গঠনের যে স্থায়ীত্ব ( বা স্টেবিলিটি) তা নষ্ট হয়ে যাওয়া।
  • ডুরা নামক সুষুম্না কাণ্ডের আচ্ছাদনের নীচে ফাইব্রোসিস হয়ে নার্ভগুলোকে আরও জড়িয়ে ধরা।
  • ইতিমধ্যে নিউরোপ্যাথি শুরু হয়ে গেছে, এমন নার্ভগুলির উপর চাপ কমালেও নার্ভগুলি রোগগ্রস্ত হয়ে পরে।
  • হয়তো কোমরের ব্যথার কারন ছিল অন্য কিছু, স্লিপড ডিস্ক নয়, ফলে সমস্যার সমাধান তো হয়ইনি বরং বেড়ে গেছে।

​এই সমস্ত ক্ষতির কথা ভাবলেও কতকগুলি ক্ষেত্রে অপারেশনের ঝুঁকি নিতেই হয়। যেমন –

  • পায়খানা বা প্রস্রাব ধরে রাখতে না পারা।
  • প্যারালিসিস তৈরি হাওয়া এবং তা বাড়তে থাকা।
  • মেরুদন্ডের হাড়ের ফ্র্যাকচার থাকা।

কিন্তু স্লিপড ডিস্কের অপারেশন সবচেয়ে বেশি হয় শুধুমাত্র ব্যথার কারণে।উপরোক্ত তিনটি কারণ ছাড়াও, শতকরা ৮৫ শতাংশ ক্ষেত্রে অপারেশন এড়ানো যেতে পারে আধুনিক কিছু চিকিৎসার দারা।

স্লিপড ডিস্ক ও ইন্টারভেনশনাল পেন ম্যানেজমেন্ট ঃ

স্লিপড ডিস্কের সমস্যার সমাধানে বেরিয়ে এসেছে বেশ কিছু আধুনিক পদ্ধতি। প্রথমেই আসি এপিডুরাল ইঞ্জেকশনের কথায়। এটি খুবই সাধারণ পদ্ধতি, যদি প্রাথমিক অবস্থাতেই করা যায় তবে সাফল্যের হার প্রায় ৮০ শতাংশের মত, এবং সমস্যা ফিরে আসার সম্ভবনাও কম থাকে। এই পদ্ধতিতে কিছু বিশেষ ধরনের ওষুধ সুষুম্না কান্ডের ঠিক বাইরের এপিডুরাল স্পেসের মধ্যে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এই ওষুধই নার্ভ রুটের নালীটিকেও স্বাভাবিক করে তুলতে পারে। সমস্যা যদি অনেক পুরানো হয় তবে সমস্যা ফিরে আসার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। চিকিৎসা পদ্ধতিটি জটিল না হওয়ায় এবং খরচ নামমাত্র ( অপারেশনের তুলনায় ১০ থেকে ২০০ ভাগ কম ) হওয়ায় সমস্ত উন্নত দেশগুলিতে এখন এই পদ্ধতি অত্যন্ত জনপ্রিয়। এই পদ্ধতির ক্ষতিকারক দিক প্রায় নেই বললেই চলে এবং প্রয়োজনে বেশ কয়েকবার পদ্ধতিটির পুনঃপ্রয়োগ করা যায়।

তবে উপরোক্ত দুটি ক্ষেত্রেই ডিস্কের আয়তন কমানো যায় না আর তাই শতকরা ১০-২০ শতাংশ ক্ষেত্রে এগুলি ব্যর্থ হয়। এজন্য উপরোক্ত পদ্ধতিগুলির সঙ্গে যোগ হয়েছে আরও কিছু ইন্টারভেনশন যা ডিস্কের আয়তনকে ছোট করে দেয়। এই ইন্টরভেনশনগুলির মধ্যে ‘ওজোন ডিস্কেকটমি’ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

এপিডুরাল ব্লক ও এপিডুরোলাইসিস :

এপিডুরাল ব্লক হল একটি পদ্ধতি যাতে ভিন্ন ধরনের সূঁচ বিশেষ পদ্ধতিতে এই এপিডুরাল স্পেসে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এরপর ওষুধের দ্বারা নার্ভরুটের প্রদাহ কমিয়ে দেওয়া হয়।

এপিডুরোলাইসিস পদ্ধতিতে নার্ভরুটের চারপাশে তৈরি হওয়া ফাইব্রোসিস বা অ্যাডহেশনসও পরিষ্কার করে দেওয়া হয়। এপিডুরোলাইসিস করার আগে একটি বিশেষ ডাই ইঞ্জেকশন করে নার্ভরুটের ছবি দেখে নেওয়া হয়। একে বলা হয় এপিডুরোগ্রাম। এটি হল এমন পরীক্ষা যার দ্বারা নার্ভরুটের চারপাশের ফাইব্রোসিস বা অ্যাডহেশনস বোঝা সম্ভব।

ওজোন ডিস্কেকটমি :

বিভিন্ন রকম স্লিপড্ ডিস্কের রোগীদের ক্ষেত্রে এই চিকিৎসার প্রয়োগ করা হয়। এখানে বিশেষ পদ্ধতিতে রোগাক্রান্ত ডিস্কের মধ্যে ওজোন গ্যাস ঢুকিয়ে দিলে ওই গ্যাস ডিস্কের মধ্যেকার জেলিটিকে শুকিয়ে ছোট করে দেয়। ফলে, নার্ভের ওপর তৈরি হওয়া চাপ কমে যায়। এই ব্যবস্থায় সাফল্যের হার অপারেশনের সমতুল্য  অথচ অপারেশনজনিত ঝুঁকি এখানে নেই। খরচও অনেক কম। আর খুব কম সময়ের জন্যই হাসপাতালে থাকার প্রয়োজন হয়।

ROOT

করোনার ৩ নতুন উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ডায়রিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থা (সিডিসি) করোনাভা্রাসের নতুন তিনটি উপসর্গ চিহিৃত করেছে। নতুন ৩ উপসর্গ হচ্ছে সর্দি, বমিভাব আর ...
Read More

করোনায় শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামানের মৃত্যু

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মহাখালীর জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসাদুজ্জামান মারা গেছেন। ...
Read More

করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ফিরোজ আল-মামুন (৪০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ফিরোজ উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের মাওনা গ্রামের মৃত ...
Read More

অতিরিক্ত অর্থে মিলছে অক্সিজেন

রাজশাহীতে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। আর এর চাইতেও বেশি আছে করোনা উপসর্গ নিয়ে নতুন রোগীর সংখ্যা। এ ধরনের ...
Read More

উপসর্গে ওসমানী মেডিকেলের অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকরের মৃত্যু

সিলেটের এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. গোপাল শংকর দে করোনাভাইরাসের ...
Read More

চীনের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হতে পারে বাংলাদেশে

করোনাভাইরাস নির্মূলে চীন আবিষ্কৃত সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বাংলাদেশে হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। ...
Read More

ক‌রোনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টার মৃত্যু

করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমী মারা গেছেন। শুক্রবার (২৬ জুন) বিকেলে এভার কেয়ার ...
Read More

রাজশাহীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে দু’জনের মৃত্যু,

প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীতে মারা গেছেন একজন। আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে করোনার উপসর্গ নিয়ে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল ...
Read More

করোনায় মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যানের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বেসরকারি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি ...
Read More
%d bloggers like this: